1. netpeonbd@gmail.com : Desk Report : Desk Report
  2. netpeoneditor@gmail.com : Desk Report : Desk Report
  3. admin@irisnewsbd.com : irisnewsbd : Ali Siddiki
  4. naimurrahman4969@gmail.com : naimur rahman naeem : naimur rahman naeem
  5. raju.aamar.fm@gmail.com : Raisul Islam Chowdhury : Raisul Islam Chowdhury
  6. azizul.basir@gmail.com : Azizul Basir : Azizul Basir
  7. rifathossain3535@gmail.com : rifat hossain : rifat hossain
  8. mdriyadhasan700@gmail.com : Riyad hasan : Riyad hasan
বকশিশ ৫০ টাকা কম দেওয়ায় খুলে ফেলা হয় অক্সিজেন মাস্ক - Iris News
বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:৫৪ অপরাহ্ন

বকশিশ ৫০ টাকা কম দেওয়ায় খুলে ফেলা হয় অক্সিজেন মাস্ক

সংবাদ সংগ্রহকারীঃ
  • তথ্য হালনাগাদের সময়ঃ রবিবার, ২ জানুয়ারী, ২০২২
  • ২৩ প্রদর্শিত সময়ঃ
বকশিশ ৫০ টাকা কম দেওয়ায় খুলে ফেলা হয় অক্সিজেন মাস্ক
বকশিশ ৫০ টাকা কম দেওয়ায় খুলে ফেলা হয় অক্সিজেন মাস্ক

মাথায় গুরুতর আঘাত নিয়ে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে এসেছিল বিকাশ চন্দ্র নামের অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্র। তবে হাসপাতালের এক কর্মচারীর নিষ্ঠুরতায় কিছুক্ষণের মধ্যেই তার মৃত্যু হয়। স্বজনরা অভিযোগ করেছেন, ওই কর্মচারীকে ৫০ টাকা বকশিশ কম দেওয়ায় সে রোগীর অক্সিজেন মাস্ক খুলে নেয় এবং দ্রুতই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে বিকাশ।মঙ্গলবার রাতে এই মর্মান্তিক মৃত্যুতে শহরজুড়ে সমালোচনার ঝড় উঠলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। বিকাশ চন্দ্র গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার পুটিমারী গ্রামের বিশু চন্দ্র কর্মকারের ছেলে এবং স্থানীয় মুক্তিনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র। ঘটনাটিকে হত্যাকাণ্ড মনে করলেও মৃতের পরিবার মামলা দায়ের করতেও ভয় পাচ্ছে।বিকাশের কাকা শচীন চন্দ্র কর্মকার বলেন, হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কার্যক্রম শেষ করে অক্সিজেনসহ বিকাশকে ট্রলিতে করে তৃতীয় তলায় নিয়ে যাওয়া হয়। আসাদুজ্জামান ধলু নামের হাসপাতালের এক কর্মচারী রোগীকে ট্রলিতে করে বেডে পৌঁছে দেওয়ার পর ২০০ টাকা বকশিশ দাবি করে। এ সময় বিকাশের বাবা ১৫০ টাকা দেন এবং জানান, তাদের কাছে আর কোনো টাকা নেই। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ধলু রোগীর মুখ থেকে অক্সিজেন মাস্ক খুলে দেয়। পাঁচ মিনিটের মধ্যে বিকাশ শ্বাসকষ্টে মারা যায়। এ সময় অন্যান্য রোগীর স্বজন ওই কর্মচারীর ওপর চড়াও হলে হাসপাতালের আনসারদের সহায়তায় পালিয়ে যায় সে।

শচীন জানান, বিকাশের বাবা একজন গরিব কর্মকার। সংসারে টানাপোড়েনের কারণে সে লেখাপড়ার পাশাপাশি একটি ওয়ার্কশপে লেদ মিস্ত্রির হেলপার হিসেবে কাজ করত। কাজ শেষে মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে বাইসাইকেলে বাড়ি ফেরার পথে একটি মোটরসাইকেলের সঙ্গে ধাক্কা লেগে বিকাশ মাথায় গুরুতর আঘাত পায়।তাকে সাঘাটা উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পর উন্নত চিকিৎসার জন্য রাতে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এই হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক (এসআই) শামীম বলেন, রোগীর মৃত্যুর পর সেখানে উত্তেজনা দেখা দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ তৃতীয় তলায় গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। কিন্তু পুলিশ পৌঁছার আগেই ওই কর্মচারী পালিয়ে যায়।হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. আবদুল ওয়াদুদ বলেন, ধলু হাসপাতালের স্থায়ী কর্মচারী নয়। সে দৈনিক মজুরির ভিত্তিতে পরিচ্ছন্নতাকর্মী হিসেবে সেখানে ডিউটি করত। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তে গঠিত কমিটিকে পাঁচ কর্মদিবসের মধ্যে তদন্ত রিপোর্ট জমা দিতে বলা হয়েছে। তদন্তে সে দোষী প্রমাণিত হলে তার বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তিনি জানান, মৃত কিশোরের বাবা অতিদরিদ্র। তাই হাসপাতাল থেকে ফ্রি অ্যাম্বুলেন্স দিয়ে মৃতদেহ বাড়ি পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।

বগুড়া সদর থানার ওসি সেলিম রেজা বলেন, অভিযুক্ত কর্মচারীকে গ্রেপ্তারে পুলিশ মাঠে নেমেছে। মৃতের বাবাকে মামলা করার জন্য বলা হয়েছে। কিন্তু তিনি মামলা করতে আগ্রহী নন।বিকাশের বাবা সমকালকে বলেন, ‘শুধু ৫০ টাকার জন্য ধলু সবার সামনে ছেলের মুখ থেকে অক্সিজেনের মাস্ক খুলে নেওয়ার পরই তার মৃত্যু হয়।’ মামলার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমার ছেলেকে যারা মেরে ফেলেছে, তারা খুব প্রভাবশালী। তাদের সঙ্গে আমরা পারব না। সে জন্যই মামলা করতে চাচ্ছি না। আর মামলা করলে মাঝেমধ্যে আদালতে যাতায়াত করতে হবে, সেই সামর্থ্যও আমার নেই।’সাঘাটা (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি জানান, বিকাশের মৃত্যুর খবরে তার স্কুলের সহপাঠীরা কান্নায় ভেঙে পড়ে। শিক্ষকরাও শোক প্রকাশ করেছেন। প্রধান শিক্ষক জুয়েল হোসেন বলেন, সংসারে অভাবের কারণে সে স্কুলের বেতনও দিতে পারত না। লেখাপড়ার পাশাপাশি লেদ শ্রমিকের কাজ করত। দুই ভাইয়ের মধ্যে বিকাশ ছিল বড়। তার ছোট ভাই বিমান চন্দ্রও একই স্কুলে সপ্তম শ্রেণিতে পড়ে। ছেলের মর্মান্তিক মৃত্যুতে শোকে পাথর হয়ে গেছেন তার মা কল্পনা রানী।

খবরটি আপনার স্যোশাল টাইমলাইনে শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই জাতীয় আরও অন্যান্য খবর

কপিরাইট © ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । আইরিস নিউজ বিডি.কম,আইরিস মিডিয়া বাংলাদেশের একটি  প্রতিষ্ঠান ।

error: Content is protected !!