1. netpeonbd@gmail.com : Desk Report : Desk Report
  2. netpeoneditor@gmail.com : Desk Report : Desk Report
  3. admin@irisnewsbd.com : irisnewsbd : Ali Siddiki
  4. naimurrahman4969@gmail.com : naimur rahman naeem : naimur rahman naeem
  5. raju.aamar.fm@gmail.com : Raisul Islam Chowdhury : Raisul Islam Chowdhury
  6. azizul.basir@gmail.com : Azizul Basir : Azizul Basir
  7. mdriyadhasan700@gmail.com : Riyad hasan : Riyad hasan
নিয়ন্ত্রণে আসছে না ডেঙ্গু, দিনে ২৫০-৩০০ রোগী ভর্তি হচ্ছেন হাসপাতালে - Iris News
সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৪:১৪ পূর্বাহ্ন

নিয়ন্ত্রণে আসছে না ডেঙ্গু, দিনে ২৫০-৩০০ রোগী ভর্তি হচ্ছেন হাসপাতালে

সংবাদ সংগ্রহকারীঃ
  • তথ্য হালনাগাদের সময়ঃ শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১৪ প্রদর্শিত সময়ঃ
নিয়ন্ত্রণে আসছে না ডেঙ্গু, দিনে ২৫০-৩০০ রোগী ভর্তি হচ্ছেন হাসপাতালে
নিয়ন্ত্রণে আসছে না ডেঙ্গু, দিনে ২৫০-৩০০ রোগী ভর্তি হচ্ছেন হাসপাতালে

নিয়ন্ত্রণে আসছে না ডেঙ্গু। এখনও দিনে ২৫০-৩০০ জন রোগী ভর্তি হচ্ছেন হাসপাতালে। অনেকে বাসায় কাতরাচ্ছেন। ত্যক্ত-বিরক্ত নাগরিকরা ক্ষোভ ঝাড়ছেন নগর কর্তৃপক্ষের প্রতি। কর্তৃপক্ষ বলছে, দেশে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাবের অন্যতম কারণ আবহাওয়া। চলতি মাসে আবহাওয়া অনুকূলে ফিরবে। তখন ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে আসবে।অন্যদিকে কীটতত্ত্ববিদরা বলছেন, যেভাবে কাজ চলছে তাতে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে আসবে না। এজন্য আরও জনবল দিয়ে এলাকাভিত্তিক কাজ করা দরকার।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমারজেন্সি অপারেশন সেন্টার অ্যান্ড কন্ট্রোল রুমের পরিসংখ্যান বলছে, চলতি বছরের জানুয়ারিতে ৩২ জন, ফেব্রুয়ারিতে ৯ জন, মার্চে ১৩ জন, এপ্রিলে ৩ জন, মে’তে ৪৩ জন, জুনে ২৭২ জন, জুলাইয়ে দুই হাজার ২৮৬ জন, আগস্টে সাত হাজার ৬৯৮ জন এবং সেপ্টেম্বরের ১৫ তারিখ পর্যন্ত ৪ হাজার ৪৭৫ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এই হিসাবে আগস্ট ও সেপ্টেম্বরে আক্রান্তের ধারা একই গতিতে আছে। সব মিলিয়ে চলতি বছর ১৪ হাজার ৮৩১ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের হিসাব বলছে গত কয়েক মাস ধরে ডেঙ্গুর প্রকোপ ঊর্ধ্বমুখী। আক্রান্তদের বেশিরভাগই শিশু। ১৫ সেপ্টেম্বরের পরিসংখ্যান বলছে- আক্রান্তদের মধ্যে শূন্য থেকে একবছর বয়সী আছে দুই শতাংশ। শূন্য থেকে ১০ বছর বয়সী ১৭ দশমিক ৫ শতাংশ, ১১ থেকে ২০ বছর বয়সী ২৩ দশমিক ৪ শতাংশ, ২১ থেকে ৩০ বছর বয়সী ২৪ দশমিক ২ শতাংশ, ৩১ থেকে ৩০ বছর বয়সী ১৭ দশমিক ৫ শতাংশ, ৪১ থেকে ৫০ বছর বয়সী ৭ দশমিক ১ শতাংশ, ৫০ থেকে ৬০ বছর বয়সী ৬ দশমিক ৩ শতাংশ এবং ৬০ বছরের ঊর্ধ্বে ২ শতাংশ মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন।

এদিকে, গত ২৫ আগস্ট সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে ডিএসসিসি মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, ‘দেশে এডিস মশা বিস্তারের অন্যতম কারণ আবহাওয়া। আবহাওয়া অনুকূলে এলে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা শূন্যে নেমে আসবে। এ বছর বৃষ্টি বেশি হওয়ায় ডেঙ্গু বেশি ছড়িয়েছে।’

চলতি মাসেই ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে আসবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকারমন্ত্রী তাজুল ইসলাম। গত রবিবার (১২ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম পরিদর্শন শেষে তিনি একথা বলেন। মন্ত্রী বলেন, ‘এখন ডেঙ্গুর প্রকোপ বাড়লেও এ মাসেই নিয়ন্ত্রণে আসবে। ২০১৯ সালে ডেঙ্গুতে আক্রান্তের সংখ্যা আরও বেশি ছিল। সতর্কতা অবলম্বন করায় এবার সংখ্যাটা কমেছে।’

উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘প্রতিদিন আমাদের মশককর্মীরা কাজ করছেন। নগরবাসীকে সচেতন করে যাচ্ছি। আমি মনে করি ডিএনসিসিতে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।’

তবে দুই মেয়র ও মন্ত্রীর এমন বক্তব্যের পরও আশা দেখছেন না নগরবাসী। তারা বলছেন, ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে সিটি করপোরেশন তেমন কিছু করছে না। বরং নাগরিকদের দায়ী করে জেল-জরিমানা করছে। এভাবে ভয়-ভীতি দেখিয়ে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণ সম্ভব নয়।

জানতে চাইলে জুরাইনের বাসিন্দা মিজানুর রহমান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘ঢাকার ঘরে ঘরে ডেঙ্গু। মহামারি আকার নিয়েছে যেন। আমাদের ৫৩ নম্বর ওয়ার্ডে ৯ জন মারা গেছে শুনেছি। একটি ওয়ার্ডেই যদি এতজন মারা যায়, বাকিগুলোর অবস্থা বুঝে নিন।’

পুরান ঢাকার বাসিন্দা আলাউদ্দিন বলেন, ‘এলাকায় মশার বেশ উৎপাত। আমরা করপোরেশনকে সচেতন করতে কয়েকটি প্রতীকী প্রোগ্রাম করেছি। কোনও তৎপরতাও দেখা যাচ্ছে না।’

কীটতত্ত্ববিদ এবং জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক কবিরুল বাশার বলেন, ‘আমরা ডেঙ্গুর সঠিক তথ্য পাচ্ছি না। এভাবে কাজ করলে ডেঙ্গু যাবে না। সপ্তাহে অন্তত একবার হলেও সিটি করপোরেশনকে প্রতিটি বাড়িতে বাড়িতে পরিদর্শনে যেতে হবে। এজন্য প্রতিটি ওয়ার্ডকে আলাদা ব্লকে ভাগ করে নিতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘উত্তর সিটিতে দুই লাখ হোল্ডিং রয়েছে। এজন্য ১২০০ স্বাস্থ্যকর্মী নিয়োগ দিতে সুপারিশ করেছি। একজনের দায়িত্বে দিনে ১২০টি বাড়ি পড়বে। সপ্তাহে প্রতিটি বাড়ি একবার ভিজিট করা হবে। ভিজিটরের দায়িত্ব হবে ডেঙ্গুর লার্ভা থাকলে সেই খবর সিটি করপোরেশনে পৌঁছানো। এভাবে কাজ করলে বাসাবাড়িতে ডেঙ্গু থাকবে না। কলকাতায় এই মডেল ব্যবহার করে সফলতা পাওয়া গেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে মশক নিধনকে দুভাগে ভাগ করতে হবে। প্রথমত, এডিস ও দ্বিতীয়ত কিউল্যাক্স। এ ছাড়া মশা নিয়ন্ত্রণে সিটি করপোরেশন আলাদা শাখাও স্থাপন করতে পারে।’

খবরটি আপনার স্যোশাল টাইমলাইনে শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরও অন্যান্য খবর

কপিরাইট © ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । আইরিস নিউজ বিডি.কম,আইরিস মিডিয়া বাংলাদেশের একটি  প্রতিষ্ঠান ।

error: Content is protected !!