1. netpeonbd@gmail.com : Desk Report : Desk Report
  2. netpeoneditor@gmail.com : Desk Report : Desk Report
  3. admin@irisnewsbd.com : irisnewsbd : Ali Siddiki
  4. naimurrahman4969@gmail.com : naimur rahman naeem : naimur rahman naeem
  5. raju.aamar.fm@gmail.com : Raisul Islam Chowdhury : Raisul Islam Chowdhury
  6. azizul.basir@gmail.com : Azizul Basir : Azizul Basir
  7. mdriyadhasan700@gmail.com : Riyad hasan : Riyad hasan
মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৫৪ পূর্বাহ্ন
দিনের সেরা অংশ |
এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের মানতে হবে ১১টি নির্দেশনা মানিকগঞ্জ বিএনপির সভাপতি রিতা, সম্পাদক জিন্নাহ গভীর রাতে পালানো ৩৫ রোহিঙ্গাকে জঙ্গল থেকে আটক চাল আমদানিতে এলসি খোলার সময় ৭ দিন বাড়লো পরীমনির ব্যবহৃত গাড়ি, মোবাইল, ল্যাপটপসহ জব্দ করা ১৬টি আলামত ফেরত দেওয়ার সুপারিশ কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় খোলার বিষয়ে যা বললেন উপাচার্য মোস্তাফিজুর রহমান ঢাকার বিমানবন্দরে নেমে সোজা চাঁদপুরে চলে গেলেন কলকাতার অভিনেত্রী কৌশানী মুখোপাধ্যায় হযরত মোহাম্মদ (সা.)-এর কিছু অনুপম আদর্শ শীতের আগেই পর্যটন ভিসা ও যাত্রীবাহী ট্রেন চালু হবে: বিক্রয় কুমার দোরাইস্বামী করোনা টেস্টের দুই কোটি ৫৮ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছেন মেডিকেল টেকনোলজিস্ট

আর্কটিকের বরফের নিচের তেল-গ্যাস

সংবাদ সংগ্রহকারীঃ
  • তথ্য হালনাগাদের সময়ঃ মঙ্গলবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১১ প্রদর্শিত সময়ঃ
আর্কটিকের বরফের নিচের তেল-গ্যাস
আর্কটিকের বরফের নিচের তেল-গ্যাস

রাশিয়ার আর্কটিক অঞ্চলে যে পরিমাণ তেল আর গ্যাসের মজুদ আছে, তা রাশিয়ার আরো ১০০ বছরের প্রয়োজন মেটাবে। এমনটাই জানিয়েছেন দেশটির উপপ্রধানমন্ত্রী আলেক্সান্ডার নোভাক।স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমে তিনি জানান, আর্কটিক জোনে সম্পদে পরিপূর্ণ। এখানে ১ হাজার ৫০০ কোটি টন তেল আর ১০০ ট্রিলিয়ন কিউবিক মিটার গ্যাস আছে। টানা কয়েক দশক এই তেল আর গ্যাস রাশিয়াকে সমৃদ্ধ করে রাখবে।কিন্তু এই সম্পদ তুলে আনতে খরচও অনেক বেশি। প্রকল্পগুলোও বেশ ব্যয়বহুল। খরচ বেশি হওয়ায় প্রকল্পগুলোতে কর ছাড়, বিনিয়োগে মুনাফা আর ভর্তুকিও দিচ্ছে রুশ সরকার।

আর্কটিকে শুধু রাশিয়ার না, পুরো বিশ্বের ১৮ শতাংশ খনিজ সম্পদের মজুদ আছে। কয়েকটি জ্বালানি কোম্পানি বলছে, আর্কটিকের পার্মাফ্রস্টের নিচে ১৬০ কোটি ব্যারেল তেল থাকতে পারে।পৃথিবীর তাপমাত্রা আর জীববৈচিত্র্য স্বাভাবিক রাখতে আর্কটিক অঞ্চলের ভূমিকার শেষ নেই। এই বরফে ঘেরা অঞ্চলের ওপর নির্ভর করে অনেক প্রাণির বাস্তুসংস্থান। এই অঞ্চলে বিপুল পরিমাণ তেল আর গ্যাসের মজুদ আছে। তেল আর গ্যাস উত্তোলনের জন্য এই অঞ্চলে খনন করা হবে কিনা, এ নিয়ে ৪০ বছর ধরে দ্বিধায় ভুগছেন রাজনীতিবিদরা। আর পরিবেশবিদরা তো বরাবরই এর বিপক্ষে।

কারণ বিলুপ্তপ্রায় আর বিশ্ব উষ্ণায়নে বিপদগ্রস্ত প্রাণিগুলোর আবাসস্থল ধ্বংস হওয়ার সম্ভাবনা আছে আর্কটিক ড্রিলিং হলে। অন্তত ২০০ প্রজাতির বিপন্ন প্রাণির আবাস এই আর্কটিক। পৃথিবীর অন্য যেকোন স্থানের চেয়ে দ্রুতগতিতে তাপমাত্রা বাড়ছে আর্কটিকের। অথচ আর্কটিকের বরফ মিথেন শোষণ করে বায়ুমন্ডলে তা প্রবেশ করতে দেয় না।জ্বালানি তেল গ্যাস কোম্পানিকে আর্কটিকে ড্রিলিংয়ের অনুমতি দেয় ট্রাম্প প্রশাসন। প্রাকৃতিক এই অঞ্চলে এখন খনন কাজ চালাচ্ছে অনেক জ্বালানি প্রতিষ্ঠান। গেলো ১ বছরে আর্কটিক এলএনজি দুই প্রকল্পের আওতায় অনেক জাহাজ চলাচল করছে। প্রতিবছর এই প্রকল্প থেকে ২ কোটি টন এলএনজি উত্তোলনের লক্ষ্য নেয়া হয়েছে।

২০২৪ সাল নাগাদ, রাশিয়ার এ অঞ্চলে শিপমেন্ট বাড়ানোর পাশাপাশি ৮ কোটি টন এলএনজি উত্তোলনের লক্ষ্য আছে। ২০৩০ সাল নাগাদ এ পরিমাণ পৌঁছাতে পারে ১৫ কোটি টনে।আর্কটিক যেন ভারসাম্য না হারায়, সেজন্য এখানে খনন কাজ পরিচালনা না করতে বিনিয়োগ করেছে অনেক আর্থিক প্রতিষ্ঠান। পৃথিবীর উত্তরে অবস্থিত আরেক মেরু অঞ্চল আর্কটিক। আর্কটিক মূলত একটি সাগর। সাগরের উপরিভাগের পুরোটাই পুরু বরফে আচ্ছাদিত। আর্কটিক অঞ্চলের আশপাশে আছে কানাডা, ডেনমার্ক, আইসল্যান্ড, নরওয়ে, সুইডেন, ফিনল্যান্ড, রাশিয়া আর যুক্তরাষ্ট্র।এই ৮টি দেশই সম্মিলিতভাবে আর্কটিক অঞ্চল নিয়ন্ত্রণ করে। আর্কটিক অঞ্চলের স্থায়ী বাসিন্দা পোলার বিয়ার। এ ছাড়া বিচিত্র কিছু প্রাণির বসবাস আছে এই অঞ্চলে। শীতে তাপমাত্রা সর্বনিম্ন মাইনাস ৬৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নামতে পারে। আর্কটিক অঞ্চলে অন্তত ৪০ লাখ মানুষ বাস করে।

খবরটি আপনার স্যোশাল টাইমলাইনে শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরও অন্যান্য খবর

কপিরাইট © ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । আইরিস নিউজ বিডি.কম,আইরিস মিডিয়া বাংলাদেশের একটি  প্রতিষ্ঠান ।

error: Content is protected !!