1. netpeonbd@gmail.com : Desk Report : Desk Report
  2. netpeoneditor@gmail.com : Desk Report : Desk Report
  3. admin@irisnewsbd.com : irisnewsbd : Ali Siddiki
  4. raju.aamar.fm@gmail.com : Raisul Islam Chowdhury : Raisul Islam Chowdhury
  5. azizul.basir@gmail.com : Azizul Basir : Azizul Basir
  6. mdriyadhasan700@gmail.com : Riyad hasan : Riyad hasan
রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৩০ অপরাহ্ন
দিনের সেরা অংশ |
ইভ্যালির সিইও রাসেল ও তার স্ত্রী সহ আরো ২০ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা এসএসসি পরীক্ষা আগামী ৫ থেকে ১১ নভেম্বর এবং এইচএসসি পরীক্ষা ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে ডেঙ্গু আপডেট: গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ২৪১ জন হাসপাতালে ভর্তি অপেক্ষা শেষে আবারও মাঠে গড়াচ্ছে আইপিএল ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সীদের টিকা দেওয়ার সিদ্ধান্ত এখনও চূড়ান্ত হয়নিঃ স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় জামিন পেয়েছেন সময় টিভির রিপোর্টার তানভীর ৫৯টি অবৈধ ও অনিবন্ধিত আইপি টিভি বন্ধ করলো বিটিআরসি আজ থেকে প্রতিদিন সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত সিএনজি স্টেশন বন্ধ দেশে ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যু ৪৩ জন নির্বাচনে কোনও সহায়তা করতে পারে কিনা জানতে চায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়

নতুন অর্থবছরে ডিএসসিসির বাজেট

সংবাদ সংগ্রহকারীঃ
  • তথ্য হালনাগাদের সময়ঃ বুধবার, ২৫ আগস্ট, ২০২১
  • ১৩ প্রদর্শিত সময়ঃ
নতুন অর্থবছরে ডিএসসিসির বাজেট
নতুন অর্থবছরে ডিএসসিসির বাজেট

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ২০২১-২২ অর্থবছরের জন্য ৬ হাজার ৭৩১ কোটি ৫২ লাখ টাকার বাজেট ঘোষণা করা হয়েছে। পাশাপাশি ২০২০-২১ অর্থবছরের ৬ হাজার ৪৯ কোটি ৮০ লাখ টাকার সংশোধিত বাজেট অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এই বাজেট চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। এ বাজেট ডিএসসিসির ইতিহাসে সব চেয়ে বড় বাজেট বলে জানিয়েছেন মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। গত ১৫ জুলাই ডিএসসিসির দ্বিতীয় পরিষদের অষ্টম করপোরেশন এই বাজেট পাস ও অনুমোদন দেওয়া হয়।

বাজেটে রাজস্ব আয়

প্রারম্ভিক স্থিতি ৩৫১ কোটি ৭৯ লাখ টাকা; মোট রাজস্ব আয় এক হাজার ২১৬ কোটি ১৮ লাখ টাকা; মোট অন্যান্য আয় ২৩ কোটি ৫০ লাখ টাকা; সরকারি থোক ও বিশেষ বরাদ্দ থেকে ৬০ কোটি টাকা; মোট সরকারি ও বৈদেশিক উৎস থেকে আয় ৫ হাজার ৮০ কোটি ৫ লাখ টাকা।

এতে ২০২১-২২ অর্থবছরের জন্য হোল্ডিং ট্যাক্স বাবদ ৩৭৫ কোটি টাকা; বাজার সালামি বাবদ ২৫০ কোটি টাকা; বাজার ভাড়া বাবদ ৩৭ কোটি টাকা; ট্রেড লাইসেন্স ফি বাবদ ২০০ কোটি টাকা; রিকশা লাইসেন্স ফি ২ কোটি ৫০ লাখ টাকা; প্রমোদ কর (সিনেমা) বাবদ ১৫ লাখ টাকা; বিজ্ঞাপন কর বাবদ ১৫ কোটি টাকা; বাস-ট্রাক টার্মিনাল থেকে ১৫ কোটি টাকা; অস্থায়ী পশুর হাট ইজারা বাবদ ২০ কোটি টাকা; ইজারা (টয়লেট, পার্কিং, কাঁচাবাজার ইত্যাদি) বাবদ ৩০ কোটি টাকা; জবাইখানা ইজারা বাবদ ২৫ লাখ টাকা; রাস্তা খনন ফি বাবদ ৩০ কোটি টাকা; যন্ত্রপাতি ভাড়া বাবদ ৫ কোটি টাকা; শিশু পার্ক ৫ লাখ টাকা; বিভিন্ন ফরম বিক্রি ৪ কোটি ৫০ লাখ টাকা; কমিউনিটি সেন্টার ভাড়া বাবদ ৫ কোটি টাকা; কবরস্থান, শ্মশানঘাট বাবদ ২ কোটি টাকা; সম্পত্তি হস্তান্তর কর বাবদ ১২৫ কোটি টাকা; ক্ষতিপূরণ (অকট্রয়) ২ কোটি টাকা; পেট্রোল পাম্প বাবদ ৩ কোটি ৫০ লাখ টাকা; অন্যান্য ভাড়া (ভূমি, কাজী বশির মিলনায়তন, ছিন্নমূল ও নগর ভবন ইত্যাদি) ৫ কোটি টাকা; নগরীতে ভোগ, ব্যবহার বা বিক্রিয়ের জন্য পণ্য আমদানির ওপর কর ২৫ লাখ টাকা; নগর হতে পণ্য রফতানির ওপর কর ২৫ লাখ টাকা; টোল জাতীয় কর ১২ কোটি টাকা; পেশা বা বৃত্তির ওপর কর ২৫ লাখ টাকা; বিবাহ, তালাক, দত্তক গ্রহণ ও যিয়াফত বা ভোজের ওপর কর ৪২ লাখ টাকা; পশুর ওপর কর ৫ লাখ টাকা; জনসেবামূলক কার্য সম্পাদনের জন্য রেট ৫ লাখ টাকা; সরকার কর্তৃক আরোপিত করের ওপর উপকর ৫ লাখ টাকা; শিক্ষা প্রতিষ্ঠান/ ট্রেনিং সেন্টার প্রভৃতির ওপর কর ২৫ লাখ টাকা; মেলা, কৃষি প্রদর্শনী, শিল্প প্রদর্শনী, ক্রীড়া প্রতিযোগিতা এবং অন্যান্য জনসমাবেশের উপর ফিস ১০ লাখ টাকা।

বাজটে উন্নয়ন ব্যয়

মোট পরিচালন ব্যয় ৪৬০ কোটি ৪৭ লাখ টাকা; মোট অন্যান্য ব্যয় ১ কোটি টাকা; নিজস্ব অর্থায়নে উন্নয়ন ব্যয় ৮৩৭ কোটি ৯১ লাখ টাকা; সরকারি ও বৈদেশিক সহায়তায় উন্নয়ন ব্যয় ৫ হাজার ৮০ কোটি ৫ লাখ টাকা। মোট উন্নয়ন ব্যয় ৫ হাজার ৯১৭ কোটি ৬৯ লাখ টাকা।

এতে সড়ক ও ট্রাফিক অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ ও উন্নয়ন ২৯৫ কোটি ৮৬ লাখ টাকা; কবরস্থান ও শ্মশানঘাট সংস্কার ও উন্নয়ন ৩৪ কোটি টাকা; নাগরিক বিনোদনমূলক সুবিধাদি উন্নয়ন বাবদ ২ কোটি টাকা; ভৌত অবকাঠামো নির্মাণ, উন্নয়ন বা রক্ষণাবেক্ষণ বাবদ ১৮৪ কোটি টাকা।

পরিচালনা ব্যয়

কর্মচারীদের প্রতিদান (বেতন ভাতা ও অন্যান্য ২৮৩ কোটি টাকা; বিদ্যুৎ, জ্বালানি, পানি ও গ্যাস বাবদ ৫৭ কোটি টাকা; মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষণ বাবদ ২২ কোটি ২৫ লাখ টাকা; সরবরাহ বাবদ ৪২ কোটি ৪৬ লাখ টাকা।

স্বাস্থ্যবিভাগ

মশক নিধনে ব্যবহৃত কীটনাশক ২২ কোটি ৫০ লাখ টাকা; জলাশয় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন ও ব্যবস্থাপনা ৫ লাখ টাকা; ফগার/ হুইল/স্প্রে মেশিন পরিবহন ৩ কোটি ৭৫ লাখ টাকা; প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্র (নগর ভবন) ৫ লাখ টাকা; ওষুধ (হোমিওপ্যাথিক) ২ লাখ টাকা; খাদ্য পরীক্ষাগার (ল্যাব) পরিচালনা ১২ লাখ টাকা; প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরিচর্যা ২৫ লাখ টাকা; নিজস্ব ব্যবস্থাপনায কুকুর নিয়ন্ত্রণ (ভেটেরেনারিসহ) ১২ লাখ টাকা; মাদক বিরোধী কার্যক্রম পরিচালনা ১ লাখ টাকা; তামাক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম ১ লাখ টাকা।

মহানগর জেনারেল হাসপাতাল

ওষুধ ৫০ লাখ টাকা; সার্জিকাল দ্রব্যাদি ৫ লাখ টাকা; রোগীর খাদ্য ১৫ লাখ টাকা; সরঞ্জাম, কেমিক্যাল ও প্যাথলজি ইত্যাদি ৫০ লাখ টাকা; বিবিধ ৫ লাখ টাকা।

মহানগর শিশু হাসপাতাল

ওষুধ ৩৫ লাখ টাকা; সার্জিকাল দ্রব্যাদি ৫ লাখ টাকা; রোগীর খাদ্য ২৮ লাখ টাকা; সরঞ্জাম, কেমিক্যাল ও প্যাথলজি ইত্যাদি ১৫ লাখ টাকা; বিবিধ ২ লাখ টাকা।

নাজিরাবাজার মাতৃসদন

ওষুধ ১০ লাখ টাকা; সার্জিকাল দ্রব্যাদি ৫ লাখ টাকা; প্যাথলজি ১ লাখ টাকা; বিবিধ ১ লাখ টাকা।

ভাড়া, রেটস ও কর ৬ কোটি ৭০ লাখ টাকা; কল্যাণমূলক ব্যয় ৯ কোটি ১৩ লাখ টাকা; ভ্রমণ ও যাতায়াত ১ লাখ টাকা; ডাক, তার ও দূরালাপনি ৫ লাখ টাকা; আতিথেয়তা ৭৫ লাখ টাকা ও গোষ্ঠী বীমা ১২ লাখ টাকা।

বিজ্ঞাপন ও প্রচারণা ২ কোটি টাকা; ফিস ১৫ কোটি ৭৫ লাখ টাকা; প্রশিক্ষণ ও বিভিন্ন সংস্থার চাঁদা ৩০ লাখ টাকা; বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় বিশেষ উদ্যোগ ২০ কোটি ৫ লাখ টাকা; ভ্রাম্যমাণ আদাল/ উচ্ছেদ ৬০ লাখ টাকা এবং বিবিধ ব্যয় ৪০ লাখ টাকা। সব মিলিয়ে মোট পরিচালনা ব্যয় ৪৬০ কোটি ৪৭ লাখ টাকা। অন্যান্য ব্যয় ১ লাখ টাকা। মোট পরিচালনা ও অন্যান্য ব্যয় বাবদ ধরা হয়েছে ৪৬১ কোটি ৪৭ লাখ টাকা।

পরিবেশ উন্নয়ন:

বৃক্ষরোপণ ও বনায়ন ১ কোটি টাকা; মিডিয়ান, ফুটপাত সৌন্দর্য বৃদ্ধিকরণ ও সবুজায়ন ১ কোটি টাকা; ডাস্টবিন, এসটিএস, কভার ওয়েস্ট কনটেইনার, ব্যবস্থাপনা অবকাঠামো নির্মাণ ২৫ কোটি টাকা; গণশৌচাগার নির্মাণ ৬ কোটি ৭৫ লাখ টাকা; কেন্দ্ৰীয় ভাগাড় রক্ষণাবেক্ষণ ও উন্নয়ন ১ কোটি টাকা; ঐতিহ্যবাহী স্থাপনা সংস্কার ৫ কোটি টাকা; আদি বুড়িগঙ্গা খাল পুনরুদ্ধার ২০ কোটি টাকা; জৈব সার, গ্যাস কারখানা নির্মাণ ৫ কোটি টাকা।

মুজিববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে বিশেষ কার্যক্রম ৫০ লাখ টাকা; ঢাকা নগর জাদুঘর ৫০ লাখ টাকা; ৮টি সংসদীয় এলাকায় বিশেষ উন্নয়ন ১৬ কোটি টাকা; বিশেষ উন্নয়ন প্রকল্প (মেয়রের জন্য নির্ধারিত) ৩৫ কোটি টাকা; অপ্রত্যাশিত উন্নয়ন ব্যয় (মেয়রের জন্য নির্ধারিত) ১০ কোটি টাকা; নতুন সম্পত্তি অর্জন ২০ কোটি টাকা; তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ৫ লাখ টাকা; ভূমি অধিগ্রহণ ও উন্নয়ন ২৫ কোটি টাকা; সরঞ্জাম, যন্ত্রপাতি ও সম্পদ ক্রয় ১০০ কোটি ২৫ লাখ টাকা; বাস্তবায়িত প্রকল্পের বকেয়া (ম্যাচিং ফান্ড) ৫০ কোটি টাকা।

২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেট প্রসঙ্গে মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, ‘এই বাজেট করপোরেশনের ইতিহাসে সর্বোচ্চ বাজেট। কিন্তু আমরা এখানেই থেমে থাকতে চাই না। প্রতি বছরই আমরা আরও বড় পরিসরে ঢাকাবাসীর কল্যাণে কাজ করতে চাই। সেজন্য ক্রমাগত আমাদের রাজস্ব আহরণের সক্ষমতা বাড়াতে হবে। সকলের সহযোগিতায় আমরা আমাদের রাজস্ব আহরণের সক্ষমতা বাড়াতে পারবো বলে আমি বিশ্বাস করি।’

খবরটি আপনার স্যোশাল টাইমলাইনে শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরও অন্যান্য খবর

কপিরাইট © ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । আইরিস নিউজ বিডি.কম,আইরিস মিডিয়া বাংলাদেশের একটি  প্রতিষ্ঠান ।

error: Content is protected !!