1. netpeonbd@gmail.com : Desk Report : Desk Report
  2. netpeoneditor@gmail.com : Desk Report : Desk Report
  3. admin@irisnewsbd.com : irisnewsbd : Ali Siddiki
  4. raju.aamar.fm@gmail.com : Raisul Islam Chowdhury : Raisul Islam Chowdhury
  5. azizul.basir@gmail.com : Azizul Basir : Azizul Basir
  6. mdriyadhasan700@gmail.com : Riyad hasan : Riyad hasan
মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১, ০৬:২০ অপরাহ্ন

৩১ মণ ওজনের গাবতলী হাটে উঠবে হিরো আলম , বিক্রি হবে ১২ লাখে

সংবাদ সংগ্রহকারীঃ
  • তথ্য হালনাগাদের সময়ঃ শুক্রবার, ৯ জুলাই, ২০২১
  • ১২ প্রদর্শিত সময়ঃ
৩১ মণ ওজনের গাবতলী হাটে উঠবে হিরো আলম , বিক্রি হবে ১২ লাখে
৩১ মণ ওজনের গাবতলী হাটে উঠবে হিরো আলম , বিক্রি হবে ১২ লাখে

বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি আলোচিত নাম ‘হিরো আলম’। ইউটিউবে প্রায় ৫০০ মিউজিক ভিডিও ছাড়ার পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমসহ গণমাধ্যমে আলোচনায় আসেন বগুড়ার প্রত্যন্ত অঞ্চলের ছেলে হিরো আলম। মানুষের মুখে মুখে তার নাম। সম্প্রতি কয়েকটি মিউজিক ভিডিওতে অংশ নিয়ে আবার আলোচনায় তিনি।

এবার আসন্ন কোরবানির ঈদ সামনে রেখে তার নাম নতুন করে আলোচনায় এসেছে। এর কারণ হলো টাঙ্গাইলের পশুর হাটে এবার উঠবে প্রায় চার বছর বয়সী ও ৩১ মণ ওজনের ‘হিরো আলম’ নামের একটি ষাঁড়। যার দাম হাঁকানো হচ্ছে ১২ লাখ টাকা। ফ্রিজিয়ান জাতের ওই ষাঁড়টি লম্বায় সাড়ে ৮ ফুট আর উচ্চতা ৫ ফুট ৭ ইঞ্চি।টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলার ফাজিলহাটী ইউনিয়নের বটতলা গ্রামের প্রবাসী কামরুজ্জামানের স্ত্রী জয়নব বেগমের খামারের গরু এই ‘হিরো আলম’।

jagonews24

প্রতি বছরের মতো এবারো কোরবানির ঈদে বিক্রির জন্য তিনটি গরু প্রস্তুত করেছেন জয়নব বেগম। তিনটির মধ্যে সবচেয়ে বড় ষাঁড় ‘হিরো আলমের’ ওজন প্রায় ৩১ মণ। ফ্রিজিয়ান জাতের এই ষাঁড়টি তিনি প্রায় দেড় বছর আগে পাবনা থেকে সাড়ে তিন লাখ টাকায় কেনেন। এরপরই ষাঁড়টির নামকরণ করা হয় আলোচনার শীর্ষে থাকা ‘হিরো আলমের’ নামে।

‘হিরো আলমের’ নামে নামকরণ করাসহ বেশ বড় আকৃতির হওয়ায় স্থানীয়রা জয়নব বেগমের বাড়িতে ষাঁড়টি দেখতে ভিড় করছেন।ষাঁড়টি এবার ঢাকার অন্যতম গাবতলী পশুর হাটে বিক্রির জন্য উঠানো হবে। এর দাম হাঁকা হচ্ছে ১২ লাখ টাকা। এর আগে জয়নব বেগমের খামার থেকে গত বছর বিক্রি হওয়া ষাঁড়টির নাম ছিল ‘সোনা বাবু’। সেটির ওজন ছিল প্রায় ৩৫ মণ।

ঢাকার গাবতলীর হাটে গত বছর জয়নব বেগমের সোনা বাবুর দাম ৯ লাখ টাকা পর্যন্ত বলেছিলেন ক্রেতারা। ন্যায্যমূল্য না পেয়ে বাড়িতে ফেরত আনতে গিয়ে গাড়ি থেকে নামানোর সময় ওই ষাঁড়টির পা ভেঙে যায়। এরপর ষাঁড়টি তিন লাখ টাকায় বিক্রি করা হয়। ওই সময় জয়নব বেগম বেশ ক্ষতিগ্রস্ত হন।

খামারি জয়নব বেগম বলেন, প্রতি বছরই আমি কোরবানির ঈদে বিক্রির জন্য ষাঁড় তৈরি করি। এবারো তিনটি ষাঁড় তৈরি করেছি। খামারে সবচেয়ে বড় গরু ‘হিরো আলমের’ ওজন এখন প্রায় ৩১ মণ। তাকে প্রাকৃতিক খাবার খাইয়ে বড় করা হয়েছে। আমার পাশাপাশি শ্বশুর, শাশুড়ি, ননদ গরুগুলো লালন-পালনে সহযোগিতা করেন। বর্তমানে আমার স্বামীও দেশে এসেছেন। তিনিও গরুগুলো দেখাশোনা করছেন।’

খবরটি আপনার স্যোশাল টাইমলাইনে শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরও অন্যান্য খবর

কপিরাইট © ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । আইরিস নিউজ বিডি.কম,আইরিস মিডিয়া বাংলাদেশের একটি  প্রতিষ্ঠান ।

error: Content is protected !!