1. netpeonbd@gmail.com : irisnewsbd :
  2. azizul.basir@gmail.com : Azizul Basir : Azizul Basir
দিনাজপুরে দ্রুত বাড়ছে করোনার সংক্রমণ - Iris News BD | দিনের সেরা অংশ
বুধবার, ১৬ জুন ২০২১, ০৬:৪৯ পূর্বাহ্ন

দিনাজপুরে দ্রুত বাড়ছে করোনার সংক্রমণ

সংবাদ সংগ্রহকারীঃ
  • তথ্য হালনাগাদের সময়ঃ শনিবার, ৫ জুন, ২০২১
  • ৮ প্রদর্শিত সময়ঃ
দিনাজপুরে দ্রুত বাড়ছে করোনার সংক্রমণ
দিনাজপুরে দ্রুত বাড়ছে করোনার সংক্রমণ

দিনাজপুরে দ্রুত বাড়ছে করোনার সংক্রমণ। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আরও তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় মৃত্যুর সংখ্যা ১৩৪ জনে দাঁড়ালো।গতকাল শুক্রবার করোনায় আক্রান্ত হয়ে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। সবমিলে গত পাঁচ দিনে করোনায় ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে, যা উদ্বেগজনক। এখন পর্যন্ত শনাক্তের দিক দিয়ে জেলায় মৃত্যুহার ৪.২৩ শতাংশ। গত মাসেও শনাক্তের বিবেচনায় মৃত্যুহার ছিল ৪.৩৬ শতাংশ।এমন অবস্থায় বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে একটি অথবা দুটি উপজেলাকে কঠোর লকডাউনের আওতায় আনার সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা জানিয়েছেন জেলা সিভিল সার্জন। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে প্রজ্ঞাপন জারি কথাও জানান তিনি।

বিশেষ করে সদরে সংক্রমণ হার ও মৃত্যুহার বেশি জানিয়ে জেলা প্রশাসক বলেন, দু-একদিনের মধ্যেই সীমিত বিধিনিষেধ জারি হবে।দিনাজপুরে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় ২০২০ সালের ১৪ এপ্রিল। এক বছরে আক্রান্ত যেমন বেড়েছে তেমনি মৃত্যুর সংখ্যাও। চলতি বছরের মার্চ মাসে আক্রান্তের সংখ্যা ছিলো ১৪৬ জন, এপ্রিল মাসে ৫২৬ জন এবং মে মাসে তা এসে দাঁড়ায় ৪১৩ জনে।হিসাবে মে মাসে গড়ে যেখানে প্রতিদিন আক্রান্তের সংখ্যা ছিলো ১৩ জনের ঊর্ধ্বে সেখানে জুন মাসের পাঁচ দিনে আক্রান্তের সংখ্যা ১৪২ জন। অর্থাৎ গড়ে প্রতিদিন ২৮ জন আক্রান্ত হচ্ছেন।

এছাড়া এপ্রিল মাসে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন সাতজন, মে মাসে ১৮ জন, জুন মাসের পাঁচ দিনে মারা গেছেন ছয়জন। শনাক্ত বিবেচনায় এপ্রিল মাসে মৃত্যুহার ১.৩৩ শতাংশ, মে মাসে ৪.৩৬ শতাংশ আর জুন মাসের পাঁচ দিনে ৪.২৩ শতাংশ।দিনাজপুর সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, গত ২৪ ঘণ্টায় জেলায় ১৩৩টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে ২৩ জনের করোনা পজিটিভ প্রতিবেদন আসে। এদের মধ্যে সদর উপজেলার ১৫ জন। এই উপজেলার ৫৮টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছিল। অর্থাৎ সংক্রমণের হার ২৭.৫৯ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া তিনজনের মধ্যে বিরলের এক, সদরের এক ও বিরামপুরের একজন। তারা হলেন বিরামপুরের মোজাফফর হোসেন (৬৫), বিরলের শাহজাহান আলী (৬১) ও সদরের নাজনীন চৌধুরী (৫১)। মোজাফফর হোসেন ও শাহজাহান আলীর করোনা শনাক্ত হয় ২৩ মে, আর নাজনীন চৌধুরীর শনাক্ত হয় ২৭ মে। তারা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

এখন পর্যন্ত জেলায় যে ১৩৪ জনের মৃত্যু হয়েছে তার মধ্যে ৬৪ জনই সদরের। অর্থাৎ জেলার ১৩টি উপজেলার মধ্যে এই উপজেলায় মৃত্যুহার ৪৭.৭৬ শতাংশ। পাঁচ হাজার ৯৮৪ জন আক্রান্তের মধ্যে তিন হাজার ৩৫৩ জনই সদর উপজেলার। হিসাবে এই উপজেলায় আক্রান্তের হার ৫৬.০৩ শতাংশ। দিনাজপুরে বর্তমানে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ২৭ জন। হোম আইসোলেশনে রয়েছেন ২৬৫ জন।

দিনাজপুর করোনা প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব ও জেলা সিভিল সার্জন ডা. আব্দুল কুদ্দুছ বলেন, দুই সপ্তাহ ধরে করোনা সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখী। বিশেষ করে সদর উপজেলায় সংক্রমণ অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। ইতোমধ্যে জেলা করোনা কমিটির বৈঠক হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মানাতে কঠোর সিদ্ধান্তের দিকে যাচ্ছি আমরা। মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা যাতে ব্যাহত না হয় বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে আমরা দুটি উপজেলাকে কঠোর লকডাউনের আওতায় আনার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে যাচ্ছি। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ঘোষণাপত্র জারি করবো।

দিনাজপুর করোনা প্রতিরোধ কমিটির আহ্বায়ক ও জেলা প্রশাসক খালেদ মোহাম্মদ জাকী বলেন, জেলায় করোনা সংক্রমণ বাড়ছে। সদরে করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যুহার দুটোই বেশি। আগামী দু-একদিনের মধ্যে করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভায় লকডাউনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে। 

খবরটি আপনার স্যোশাল টাইমলাইনে শেয়ার করুন।

Comments are closed.

এই জাতীয় আরও অন্যান্য খবর
কপিরাইট © ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত আইরিস মিডিয়া বাংলাদেশ
error: আইরিস এর অনুমতি নাই !!!