1. netpeonbd@gmail.com : irisnewsbd :
  2. azizul.basir@gmail.com : Azizul Basir : Azizul Basir
বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ১০:২৩ পূর্বাহ্ন

কলকাতা ছাড়া পূজা ভাবতেই পারি না:জয়া আহসান

সংবাদ সংগ্রহকারীঃ
  • তথ্য হালনাগাদের সময়ঃ বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর, ২০২০
  • ১১৬ প্রদর্শিত সময়ঃ
irisnewsbd.com
irisnewsbd.com

দুই বাংলার জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসান৷। করোনার কারণে আছেন দেশেই, যাওয়া হচ্ছে না কলকাতায়। দীর্ঘসময় ধরে তিনি মিস করছেন যোধপুর পার্কে তার ঘর। মিস করছেন ওপার বাংলায় তার সহকর্মী, বন্ধুদের।

এবার তিনি জানালেন, কলকাতার পূজার উৎসব আমেজ মিস করবেন তিনি। ভারতের প্রভাবশালী বাংলা পত্রিকা আনন্দবাজারকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এ কথা জানিয়েছেন জয়া।

জয়া আহসান বলেন, ‘শেষ কিছু বছর ধরে আমার কাছে পূজার আনন্দ মানে ছবি রিলিজ। সৃজিতের যে কটা ছবি আমি করেছি, সেগুলো পূজাতেই মুক্তি পেয়েছে। এছাড়া অন্য ছবিও তাই। বড় হওয়ার পরে এটাই আমার কাছে পূজার মূল আকর্ষণ ছিল। এবার পূজা কেমন কাটবে জানি না।’

তিনি বলেন, ‘আমার অক্টোবরে কলকাতায় আসার কথা। ভেবেছি ঢাকা থেকে প্রথম যে ফ্লাইট ভারতে আসবে, সেটাতে চড়েই সোজা আমার যোধপুর পার্কের বাড়িতে ফিরব। নিদেনপক্ষে পূজার একটু আগেই চলে আসতে চাই, যাতে অন্তত আমেজটা বুঝতে পারি। কলকাতা ছাড়া পূজা ভাবতেই পারি না। ঢাকাতেও পূজা হবে। তবে ঠাকুর দেখতে যেতে পারব কি-না জানি না। আমাদের সবচেয়ে বড় পূজা হয় বনানীর মণ্ডপে। প্রচুর লোকজন আসেন সেখানে। তবে এবার তা কতটা হবে জানি না। হয়তো সোশ্যাল মিডিয়াতে ঠাকুর দেখতে হবে।’

জয়া আনন্দবাজারকে বলেন, ‘পূজা আর মৃত্যুর কোলাহল পাশাপাশি এসে দাঁড়িয়েছে। কোভিড আমাদের অনেক কিছু শিখিয়েছে। আমাদের সংযমী হতে শিখিয়েছে। আমাদের অপচয় কম করতে শিখিয়েছে। পূজা মানেই তো আমাদের বাহুল্যের খরচ, জামাকাপড়ের ক্ষেত্রে বিশেষ করে। এখন থেকে না হয় আমরা সামঞ্জস্য রেখে সব করি। সে জীবনই হোক বা ফ্যাশন। এটাই না হয় হোক এবার পূজার নতুন ভাবনা!’

জয়া আরও বলেন, ‘আম্ফানের (ঘূর্ণিঝড় আম্ফান) সময় খুব ভেঙে পড়েছিলাম। কাছে যেতে পারছিলাম না। দূর থেকে ওই দৃশ্য দেখা… এখন তো শুনছি ভারতের অবস্থাও সঙ্গীন। যে মানুষগুলোর সঙ্গে রোজ কাজ করেছি, তাদের কী অবস্থা? খুব আকুল হয়ে আছি। সিনেমা হল খুলল। পূজার আগে এটা সত্যি আনন্দের!’

পূজার শাড়ি নিয়ে জয়া বলেন, ‘সংযমের কথা মনে আছেই। কিন্তু পূজা আসবে আর আমি শাড়ির কথা ভাবব না? মন থেকে কি সব মুছে ফেলা যায়? সেদিন আমি ইন্টারনেটে দেখছিলাম কী কী ভালো শাড়ি এসেছে এবার। পূজাতে আমি বাংলাদেশের শাড়িই পরি। আমার মসলিন খুব প্রিয়, সুতিও পছন্দের। প্রত্যেক বছর ৪-৫টা জায়গা থেকে শাড়ি উপহার পাই। এবার কী হবে কে জানে! শুধু তো শাড়ি হলেই হবে না। সবদিক থেকেই প্রস্তুত হতে হবে।’

খবরটি আপনার স্যোশাল টাইমলাইনে শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরও অন্যান্য খবর
কপিরাইট © ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত আইরিস নিউজ বিডি.কম
error: আইরিস এর অনুমতি নাই !!!